March 2, 2024

অনুভূতির অভিধান – তাহসান রহমান খান

 

বই: অনুভূতির অভিধান
লেখক: তাহসান রহমান খান
প্রথম প্রকাশনা: মার্চ ২০২১
গল্প:২০টা
রিভিউ লেখক: সাবরিনা শিমু
জীবনে প্রথম রিভিউ দিচ্ছি।। ভালোবাসার মানুষটার লেখা প্রথম বই দিয়েই শুরু করলাম 🥰

আমার লাইফে দেখা এখনো পর্যন্ত অসাধারণ মানুষ তাহসান রহমান খান !!
অসম্ভব সম্মান এবং ভালোবাসি এই মানুষটিকে।
বাংলাদেশের বিনোদন জগতের তারকাদের মধ্যে এক বিশিষ্ট চরিত্রের অধিকারী তাহসান রহমান খান 😍
বিনোদন জগতের প্রায় সব কটা জানালায় তার কড়া নাড়ার অভিজ্ঞতা রয়েছে..
গীতিকার,সুরকার, গায়ক, অভিনেতা,শিক্ষক সব বিষয়ে তিনি বিশিষ্ট পারদর্শি।একটা মানুষ এত সব বিষয়ে কিভাবে পারদর্শী হতে পারে কত সুন্দর করে সবকিছু ম্যানেজ করা যায় তা তাহসান খানকে না দেখলে বোঝতে পারতাম না। ২০২০ সালে নতুন করে আর একটা যোগ হয়েছে নিজেকে নতুন করে আবার সবার সামনে তুলে ধরেছেন একজন লেখক হিসেবে।

“অনুভূতির অভিধান” বইটিতে ২০ টি অনুভূতিকে তিনি তুলে ধরেছেন এই অভিধানে তাহসান খানের জীবনের কিছু গল্পের ছায়া প্রকাশ করেছেন।।প্রতিটা অনুভূতির সাথে আমরা পরিচিত.
মূলত আমরা তারা তাহসান খানকে প্রকৃত অর্থে ভালোবাসি তাদের বইটা অনেক ভালো লাগবে কারণ এই বইটা পড়ার মধ্যে দিয়ে ওনার জীবনের কিছু অজানা তথ্য জানতে পারবো।।।কারো কাছে গল্পগুলো হয়তো শুধুই বিনোদন আবার কারো কাছে হয়তো বেঁচে থাকার পাথেয়।।
আমরা মানুষের মূলত বেশিরভাগ সময় নেতিবাচক অনুভূতি নিয়ে ব্যস্ত থাকি ইতিবাচক অনুভূতি খুব একটা চর্চা করি না এ বিষয়ে সবাই উদাসীন।
তাহসান খান এই ইতিবাচক অনুভূতি চর্চার ব্যাপারে বলেছেন।
বইটিতে ২০টা অনুভূতির কথা বলেছেন প্রতিটা গল্পের সাথে একটা করে কবিতা আছে।।

১.দ্বিধা:আপন মানুষ আর পরের মানুষের মধ্যে যে ফারাকটা রয়েছে সেইটা বোঝার জন্য এই অনুভূতি লাগে।কাকে কোন কথাটা বলবো কি বলবো না, কোনো কাজ করবো কি করবো না এইরকম তখন কোনো কাজে দোটানায় পড়ে যায় তাহলে সেটা দ্বিধা।

2.কৌতূহল: কিছু মানুষ স্বভাবগতভাবে নতুন কিছু জানতে আগ্রহ। নতুনকে জানার আগ্রহে ব্যস্ত থাকা এবং আদিম চিন্তার যথার্থ কে প্রশ্নবিদ্ধ করে। সে যতক্ষণ পর্যন্ত তার কৌতূহলের নিমজ্জিত থাকে ততক্ষণ পর্যন্ত চিন্তাশীল প্রক্রিয়ায় ডুবে থাকে আর যার মধ্যে কৌতূহল নেই তার মানসিক বিকাশ টা আটকে থাকে তাকে যা বুঝানোর শোনানো হয় সে ততটুকুর মধ্যেই থাকে।

৩. বিস্ময়: অপ্রত্যাশিত কোন ঘটনা ঘটে গেলে তা অবিশ্বাস্য হলেও যখন বিশ্বাস করতে হয় সাময়িকভাবে যখন আমরা থমকে যায় তখন যে অনুভূতিটা হয় সেটি হল বিস্ময়।

৪.আতঙ্ক: হঠাৎ অকল্পনীয় কোনো যটনা করে গেলে যেটার জন্য আমার মোটেও প্রস্তুত থাকি না এবং আমাদের সাহস নিমিষেই শেষ হয়ে যায় সেই অনুভূতিটাই আতঙ্ক।এই অনুভূতিটা জীবনের পথকে থমকে দেয়।

৫.অহংকার: কঠোর পরিশ্রম করে যারা প্রতিনিয়ত জিতে যায় তাদের প্রতি অবজ্ঞা আর নিজেকে তাদের উর্ধ্বে ভাবাটাই হলো অহংকার। অহংকার পতনের মূল।

৬.সহমর্মিতা: কোন স্বার্থ ছাড়া একটা মানুষ যখন অন্য মানুষের স্বার্থ রক্ষায় নিয়োজিত হয় এবং অন্যের অবস্থার উন্নয়নের চেষ্টা করে এবং নিজের আর্থিক ও মানসিক দিক থেকে প্রস্তুত থাকে এবং পরার্থপরতার স্বাদ নিতে পারে তখনই সেইটা সহমর্মিতা।

৭.অপমান:এই অনুভূতিটা আমাদের অনেক পরিচিত একটা অনুভুতি। প্রতিনিয়ত আমরা এর সম্মুখীন হয়।

“যেই মানুষটার আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার কোনো অধিকার নেই, তার কাছ থেকে কটু কথা শোনাটাই অপমান।”
স্ত্রীর সাথে বিবাহবিচ্ছেদের পর যে ট্রল ও মানসিক ট্রমার মধ্যে দিয়ে তাহসানকে যেতে হয়েছে তার প্রমাণ তিনি “অপমান” গল্পটিতে তুলে ধরেন।কষ্টের সময়গুলোতে সোশ্যাল মিডিয়াসহ সব ধরনের মিডিয়ায় যেভাবে, যা বলা হয়েছে, লেখা হয়েছে তা তাহসানকে চরমভাবে পীড়িত করেছিলো! যেমনটি অনুভূতির অভিধানে উঠে এসেছে- “আমি নিজে এই জীবদ্দশায় একবার বিবাহবন্ধন ছিঁড়ে বেরিয়ে আসার কঠিন পরীক্ষাটা দিই। আর দেশ ও দশের পরিচিত মুখ আর জাতীয় প্রত্যাশার ভারে সদা ন্যুব্জ থাকার কারণে সেই বিচ্ছেদ ছিল মানসিক পীড়া সহ্যের এক চরম পরীক্ষা।অথচ সব কথা, সকল প্রশ্ন, সকল প্রকার ট্রলের জবাবে তাহসান ছিলেন নীরব।।এই সময়টায় তিনি ধৈর্য এবং বুদ্ধিমত্তার সাথে কাটিয়ে দিয়েছেন।

৮.অনুশোচন: মানুষ কোন একটা খারাপ কাজ করার পর যখন তার মনের ভিতরে একটা অনুভূতি কাজ করে তাকে ভালো-খারাপ এর রূপরেখা বুঝতে সাহায্য করে যখন সে মানুষটা নিজের চোখে অনেক ছোট করে ফেলে এবং ক্ষমার জন্য ছুটে সেই অনুভূতিটার নামই হলো অনুশোচনা।

৯. আস্থা:কিছু মানুষ যারা হয়তো আমাদের খুব কাছের বা দূরের যাদের উপর আমাদের বিশ্বাসের ঘাটতি তা একটুও কম থাকে না যাদের উপর আমরা চোখ বন্ধ করে বিশ্বাস করতে পারি যাদের উপর বিশ্বাসটা আমাদের অটুট থাকে এই যে অনুভূতিটা সেটাই হলো আস্থা।

১০.অনুপ্রেরণা: কারো সফলতা দেখে ঈর্ষান্বিত হওয়া টা খুব সহজ কিন্তু সফল মানুষের কাছ থেকে শিখে তার মত হতে চাও এবং আমাদের চিন্তা-চেতনার চেয়ে গাঢ় চিন্তার অধিকারী মানুষ দেখলে তাদের মতো হতে চাওয়ার অনুভূতিটাই হলো অনুপ্রেরণা।

১১.শাদেনফ্রয়দ: শাদেনফ্রয়দ হলো একটি জার্মান শব্দ। অন্য কারোর ক্ষতি সাধন হতে দেখে যদি আমাদের মনের মাঝে আনন্দের অনুভূতি জাগে তবে সে অনুভূতি তার নাম হলো শাদেনফ্রয়দ।

১২.অভিমান: ভালোবাসা মানুষের কাছে বলা,না বলা যত প্রত্যাশা থাকে,তা পূরণ না হলে হৃদয়ে একটা ব্যথা অনুভূত হয় এই অনুভূতিটাই অভিমান।

১৩.একযেয়েমি: কোনো একটা কাজ বার বার করার পর যখন কাজটা আবার করতে বিষাদময় লাগে সে কাজে যখন কোনো আকর্ষন না থাকে সেই অনুভূতিটা হয় একযেয়েমি।।

১৪.উদ্বেগ: আমাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে সবাই কম বেশি তটস্ত থাকি কখন কোন কাঙ্খিত অনাঙ্খিত যটনা যটে যায় এই যে ভবিষ্যৎ নিয়ে ভয় নিয়ে প্রতিনিয়ত চিন্তার উদ্রেক,এরই নাম উদ্বগ।

১৫.বিভ্রান্তি: পরস্পরবিরোধী উত্তরগুলো যতটা জুরালো হবে,মনের মাঝে এক ধরনের অনুভুতি ততটাই তীব্র হবে।এই যে বিপ্রতীপ চিন্তার ফসল এক জবুথবু অনুভূতি, তার নাম বিভ্রান্তি।।

১৬.মুগ্ধতা: আমরা যখন সাধারণের মধ্যে অসাধারণ কিছু খুঁজে পায় যা আমাদের চিন্তা ভাবনার ঊর্ধ্বে থাকে তখন এক ধরনের প্রশান্তি হয়,সে যে প্রশান্তি খুঁজে পাই সেটার নাম হলো মুগ্ধতা।

১৭. হতাশা: ছোট বড় না পাওয়া গুলো প্রত্যাশা পূরণ না হলে জীবন একটা সময় বিষাদের আস্বাদ পাই আর তখনই সেইটা বিষাদ রূপে দীর্ঘমেয়াদি হয় সে অনুভূতি হল হতাশা।।

১৮. ঈর্ষা: আমাদের যা আছে তা যদি হারানোর ভয় থাকে এবং আমরা যদি সেই ঝুঁকের মধ্যে বসে নিরাপত্তাহীনতার অনুভব করি তাহলে সেই অনুভূতিটাই হল ঈর্ষা।

১৯.সন্দেহ: সময়ের সাথে আমরা বিভিন্ন মানুষের সাথে মিশে তাদের সাথে বিভিন্ন কাজ করি এবং বিভিন্ন ভাবে আমরা ধোকা খায় এর ফলে আমাদের প্রতিনিয়ত কোন না কোন ভাবে কারো উপর বিশ্বাস চলে যায় এবং তখন যে অনুভূতি অনুভুত হয় তাই সন্দেহ।।

২০.মনাকপ্সিস: সাধারণত একটা কাজ করার জন্য মনের ভিতর থেকে ডাক আসে এবং সে কাজটা করার জন্য অন্য সব কাজ ছেড়ে দেওয়া হলো মনাকপ্সিস।।

(ভূল ত্রুটি হলে ক্ষমা প্রার্থী)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *