February 21, 2024

And Then There Were None – Agatha Christie

বইঃ And Then There Were None
লেখকঃ Agatha Christie
পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ ২৫০
জনরাঃ মিস্ট্রি, ক্রাইম, সাইকোলজিক্যাল থ্রিলার

আগাথা ক্রিস্টিকে বলা হয় ডিটেকটিভ গল্পের রাণী। অসংখ্য উপন্যাস লিখেছেন তিনি। তবে তার মতে, এর মধ্যে এই বইটি লেখা ছিলো সবচেয়ে কঠিন ব্যাপার। বইটা প্রথম প্রকাশ হয় ১৯৩৯ সালে Ten Little Niggers নামে। পরবর্তীতে ১৯৪০এ And Then There Were None নামে প্রকাশিত হয়। বইটা ১০০মিলিয়নেরও উপরে বিক্রি হয়ে বিশ্বের সর্বকালীন বেস্ট সেলার বইয়ের তালিকায় ষষ্ঠ স্থান দখল করে আছে। বইটার উপর ভিত্তি করে সিনেমাও তৈরি হয়েছে। ১৯৪৫এ And Then There Were None এবং পরে ৬৫তে Ten Little Indians টাইটেলে মুভি বের হয়। সব মিলিয়ে বিশ্ব বিখ্যাত এই থ্রিলার উপন্যাস নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নাই।

কাহিনি সংক্ষেপঃ সোলজার আইল্যান্ডের নতুন মালিককে নিয়ে পত্র পত্রিকায় দারুণ সাড়া পড়ে যায়। অনেক ধরনের গুজব ছড়িয়ে পড়ে। এই অবস্থায় আটজন মানুষকে দ্বীপটায় আমন্ত্রণ জানানো হয়। একেকজন একেক পেশার, একেক বয়সের আর একেক মানসিকতার লোক। যথারীতি সবাই-ই এই আমন্ত্রণ কবুল করে দ্বীপে যায়। এখানে এসে তারা পায় দ্বীপের মালিকের দুইজন বাটলারকে। তারা জানায় মালিকের কাজ থাকায় আসতে দেরি হবে। কারো সাথে কারো পূর্ব পরিচয় না থাকলেও জায়গাটা তাদেরকে মুগ্ধ করে, তারা বেশ আমোদিত হয়ে ওঠে।

ভেরা ক্লাইথ্রন নিজের কামরায় ঢুকে দেখতে পায় এক আজব কবিতা। এই কবিতায় দশজন সৈন্যের মৃত্যুর কথা লেখা হয়েছে। সে ভাবে সোলজার আইল্যান্ডের সাথে মিলিয়েই হয়তো এই কবিতাটা টাঙিয়েছে মালিক। কিন্তু তার এই ধারণা সম্পূর্ণরূপে ভুল প্রমাণ করে দেয় পরবর্তী ঘটনাগুলো।

ডিনারের পর যখন তারা একত্র হয়ে আড্ডার আয়োজন করছে তখন অদৃশ্য কণ্ঠে সবার বিরুদ্ধে একেক করে ঘোষণা করা হয় খুনের অভিযোগ। তারা একে অপরকে সন্দেহ করতে শুরু করে। আর এর মধ্যেই দুনিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন এই দ্বীপে দশজনের একেক জন খুন হতে থাকে। তারা বুঝতে পারে খুনী তাদের ভিতরেই লুকিয়ে আছে। একে অপরকে সন্দেহ করার পাশাপাশি প্রাণনাশের আতঙ্কে একটা শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। কে এই খুনী আর কীভাবেই বা সে খুনগুলো করে এসব রহস্যের সমাধান জানতে পড়তে হবে এই অসাধারণ উপন্যাসটি।

আগাথা ক্রিস্টির উপন্যাস প্রথমদিকে আমার একঘেয়ে লাগে। কিন্তু কিছুদূর যেতে যেতেই এমন শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়, যে গল্প শেষ না করে ওঠা যায় না। এমনই অসাধারণ একটা জিনিস এই বইটা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *