February 26, 2024

শান্তা পরিবার – মুহম্মদ জাফর ইকবাল

রিভিউদাতা : ফাবিহা ফেরদৌস

🔸বই পরিচিতি :
বই : শান্তা পরিবার
লেখক : মুহম্মদ জাফর ইকবাল
অনন্যা প্রকাশনী
প্রকাশক : মনিরুল হক
প্রকাশকাল : ফেব্রুয়ারি ২০০২
প্রচ্ছদ : ধ্রুব এষ
পৃষ্ঠা সংখ্যা : ১১২
মুদ্রিত মূল্য : ৭৫৳

🔸বই সম্পর্কে : জাফর ইকবাল রচিত শান্তা পরিবার মূলত কিশোর উপন্যাস।

🔸লেখক সম্পর্কে :মুহম্মদ জাফর ইকবাল ১৯৫২ সালে ২৩ ডিসেম্বর পিতার কর্মস্থল সিলেটে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈতৃক নিবাস নেত্রকোনা জেলা। তাঁর মাধ্যমিক শিক্ষা সমাপ্ত হয় বগুড়ায়। ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাসের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদার্থবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ইউনিভার্সিটি অব ওয়াশিংটন থেকে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। বর্তমানে তিনি সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক পদে নিযুক্ত আছেন। তিনি বাংলা সায়েন্স ফিকশন এর একচ্ছত্র সম্রাট। “কপোট্রনিক সুখ দুঃখ” রচনার মাধ্যমে এ ধারায় তাঁর প্রথম আবির্ভাব। ২০০৪ সালে তিনি বাংলা একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন।

🔸চরিত্র চিত্রণ : পরিবারের প্রধান হল শান্তা। তাঁর স্বামী শওকত। বড় মেয়ে শাঁওলি, তারপর ছেলে সাগর, মেয়ে বন্যা, আবার ছেলে সুমন আর সবচেয়ে ছোট মেয়ে ঝুমুর। এই কয়জন মুখ্য চরিত্র। এছাড়াও অনেক চরিত্র উল্লেখ আছে বইতে।

🔸বইয়ের কাহিনী সংক্ষেপ : মুহম্মদ জাফর ইকবাল রচিত অসংখ্য জনপ্রিয় উপন্যাসের মধ্যে অন্যতম হল “শান্তা পরিবার”। স্বামী আর পাঁচটা বাচ্চা রেখে পরিবারের প্রাণ শান্তা মারা যায়। তারপর মা ছাড়া বাবাকে নিয়ে বাচ্চাদের দিন যাপনের কাহিনী শান্তা পরিবারে বর্ণিত হয়েছে। কীভাবে বাচ্চারা মা ছাড়া পুরো সংসার সুন্দর ভাবে চালিয়ে নিচ্ছে আনন্দ মজা করতে করতে সেই সব গল্প এখানে উল্লেখ আছে। তিবে সবচেয়ে মজা আছে গল্পের শেষের টুইস্টে। এই মজা নিতে হলে অবশ্যই পড়তে হবে ” শান্তা পরিবার”।

🔸পাঠ প্রতিক্রিয়া : শুরুতে শান্তার দুর্বিষহ জীবিন কাহিনী খুব ব্যথিত করেছে। তাঁর উচিত ছিল নিজে প্রতিষ্ঠিত হয়ে সবার মুখ বন্ধ করে দেওয়া। কিন্তু আমার ভাবনার ছেদ ঘটিয়ে শান্তা সংসার শুরু করল আর খুব জমিয়ে সংসার করলো। কিশোর উপন্যাস হিসেবে এই দিকটি খুব গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিশোধ নেওয়াটাকেই সবার মুখ্য মনে করে। এইদিকটি বইয়ে উল্লেখ থাকলে তা কিশোর মনকে প্রভাবিত করতে পারে। মাঝখানে শান্তার মৃত্যু দ্বিগুণ ব্যথিত করেছে। তাঁর ছেলেমেয়েদের জন্য যথেষ্ট মায়া জাগিয়েছে হৃদয়ে। কিন্তু সব শেষে টুইস্টটা সব কিছুকে আবার আগের মত করে দিয়েছে। সহ মিলিয়ে বইটি ছিল অনন্য।

🔸ব্যক্তিগত মতামত : শান্তা পরিবার বইটা পড়ে আনন্দ, বেদনা, সুখ দুঃখ, হাসি কান্না সবই পেয়েছি। শান্তা চরিত্রটা খুবই ভালো লেগেছে। তার চেয়ে ভালো লেগেছে শাঁওলি চরিত্রটা। কিচ্ছু না জেনেও সব কিছু কত সুন্দর গুছিয়ে নিয়েছিল নিমিষেই। পুরো উপন্যাস এক বসাতেই শেষ করেছি। এক মুহূর্তের জন্য মন অন্যদিকে যায়নি। বইটিতে পাঠককে চুম্বকের মত আটকে রাখার ক্ষমতা বিদ্যমান। বইয়ের সব কয়টা চরিত্রই খুব সুন্দর ছিল। তাদের দুষ্টুমির গল্পগুলোও অসাধারণ ছিল। অনেক ভালো লেগেছে বইটা। মাস্ট রিড একটা বই।
আজীবন প্রিয় হয়ে থাকবে।

🔸ব্যক্তিগত রেটিং : ৫/৫

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *