February 21, 2024

যৌতুকের বিরুদ্ধে এই লড়াই – মোঃ আলমগীর । Jowtuker Biruddhe Lorai

আমার ছোট বোনের বিবাহ থেকে আমার যে অভিজ্ঞতা হয়েছে। লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে। একাধিক জুলুমের শিকার হয়েছি বোনের শ্বশুরবাড়ির লোকজনের কাছ থেকে। যেভাবে জুলুমের শিকার হয়েছি সে অভিজ্ঞতা থেকে বইটি লেখা হয়েছে। আমি তাদেরকে বইটি উপহারের মাধ্যমে চরম শিক্ষা দেওয়ার নিয়তে লিখেছিলাম। তার মানে এই নয় যে শুধু ছোট বোনের শ্বশুরবাড়িকে পরিবর্তন করবো। বইটি তাদের জন্য যারা যৌতুক দাবি করে এবং যৌতুক দেয় যৌতুক সামর্থ্যন করে।


আপনি বিবাহ করবেন? কিন্তু আপনার পরিবার চাচ্ছে যৌতুক ছাড়া আপনাকে বিবাহ করাবে না। তাদেরকে বইটি উপহার দিন যদি, পড়তে না জানে নিজে পড়ে শোনান। এটা নিশ্চিত যেকোনো মানুষ বইটি পড়ে যৌতুক বর্জন করবে ইনশাআল্লাহ। আরেকটি কথা স্পষ্ট করে রাখি হেদায়েত এর মালিক। আল্লাহ যাকে চান তাকে হেদায়েত দিবেন। তবে আমরা দোয়া করি আল্লাহ তা’আলা সবাইকে যেনো হেদায়েত দেয় আমিন।


বোনের বিয়ে দেবেন, মেয়ের বিবাহ দেবেন, যৌতুক দাবি করেছে তাদেরকে আগে বইটি উপহার দিন। ইনশাআল্লাহ হেদায়েতের মালিক আল্লাহ তায়ালা। আমি শুধু দোয়া করব যাতে করে আমরা যৌতুক মুক্ত বাংলাদেশ উপহার পাই।


কুরআন সুন্নাহ অনুযায়ী ইসলামী শরীয়তে বিবাহ এর সম্পন্ন নিয়ম-কানুন রয়েছে বইটিতে।
যৌতুকের বিরুদ্ধে এই লড়াই চালিয়ে যাব, মা বোনদের হারানো ইজ্জত ফিরিয়ে আনবো ইনশাআল্লাহ। দরকার হলে আরও একাধিক বই লিখবো। আমি এখনো নতুন লেখক বইয়ের টাকাটাও উঠে না, বই বিক্রি করে। তবে আপনাদের উৎসাহ ও সহযোগিতায় আমার সফলতা মনে করি। কাউকে উপরের তোলা এবং নিচে নামানো এগুলো আল্লাহর হাতে। তবে পাঠকের উৎসাহ ছাড়া কোনো লেখক লেখার শক্তি খুঁজে পায় না।


সবাই বইটি উপহার পাওয়ার আশায় বসে আছেন ভালো কথা। তবে এটাও তো বোঝা উচিত আমি একজন লেখক তাও আবার অতি সাধারণ মধ্যবর্তী পরিবারের সন্তান। আমার পক্ষে তো সব পাঠকদেরকে উপহার দেওয়া সম্ভব হবে না। আমার বাড়িঘর বিক্রি করলেও তো সবাইকে উপহার দেওয়া সম্ভব হবে না। এজন্যই বলবো একে অপরকে উপহার দিন। এমনিতেই কত দু-একশ টাকা খরচ করেন কিন্তু সেগুলো হয় নষ্ট। বইয়ের কেনার টাকা কখনো নষ্ট হয় না।


আমি একজন প্রবাসী আমার মাসের বেতন তিনভাগ করি। একভাগ সাহিত্যচর্চায় ইসলাম প্রচারের পেছনে খরচ করি। একভাগ পরিবারের জন্য পাঠানো হয়। আরেকভাগ নিজের খরচের জন্য রাখা হয়। বইটি বিক্রি করে আমি টাকা পাবো এটা ভুল ধারণা। বইটি বিক্রি করে যে টাকা পাব, সেই টাকা দিয়ে যৌতুকের বিরুদ্ধে লড়াই দ্বিতীয় বই ছাপানো হবে। যতক্ষণ না যৌতুক মুক্ত বাংলাদেশ গড়তে না পারছি ততক্ষণ সমাপ্তি দিচ্ছি না। এর জন্য সকল পাঠকদেরকে সমর্থন করতে হবে ইনশাআল্লাহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *