February 25, 2024

অনেক আঁধার পেরিয়ে : মুহাম্মাদ জাভেদ কায়সার (রহ)

আমীরুল মুমিনীন উমার ইবনুল খাত্তাব রদিয়াল্লাহু আনহু-এর খিলাফতকালে একবার (আনুমানিক ৬৩৮ সাল, হিজরি ১৮ সাল) সমগ্র আরব উপদ্বীপে অনাবৃষ্টির কারণে দেখা দেয় প্রচণ্ড দুর্ভিক্ষ। ক্ষুধা ও মহামারীর কারণে অনেক মানুষ মৃত্যুবরণ করে। এমনকি ক্ষুধার কারণে বন্য-প্রাণীরা পর্যন্ত লোকালয়ে চলে আসতে শুরু করে। মদীনা মুনাওয়ারার কাছেই আশ্রয় নেয় অসংখ্য বেদুইন। একপর্যায়ে মদীনায় সঞ্চিত খাদ্যও শেষ হয়ে যায়।

এই ঘোর দুর্যোগের সময় নেতা হিসেবে উমার রদিয়াল্লাহু আনহু তাঁর খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করে ফেললেন। তিনি শপথ করেছিলেন, যে পর্যন্ত এই দুর্ভিক্ষ শেষে মানুষজন স্বাভাবিক খাবার শুরু না করবে, ততদিন গোস্ত কিংবা ঘি-জাতীয় কোনো খাবার তিনি খাবেন না।

ইয়াদ ইবনু খলীফা রহিমাহুল্লাহ বর্ণনা করছেন, “আমি দুর্ভিক্ষের সময় উমার রদিয়াল্লাহু আনহু-কে দেখেছি। লালচে ফর্সা মানুষটির গায়ের রঙ কালো (তুলনামূলকভাবে) হয়ে গিয়েছিল। তিনি স্বাভাবিক (দুধ, ঘি, গোস্ত ইত্যাদি) খাবার থেকে নিজেকে বিরত রেখেছিলেন। তাঁকে বড়ো ক্ষুধার্ত দেখাত সেই সময়ে।”

পরবর্তীকালে পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হলে বাজারে অল্প কিছু ঘি ও দুধ পাওয়া যেতে শুরু করল। তখন তাঁর দাস ৪০ দিরহাম দিয়ে অল্প কিছু ঘি ও দুধ আনলেন আমিরুল মুমিনীন উমার রদিয়াল্লাহু আনহু-এর জন্য। কিন্তু উমার এতে রেগে গেলেন এবং সেই খাবার সাদাকা করে দিতে বললেন। কারণ বাজারে ঘি, গোস্ত-সহ উত্তম খাবারের সরবরাহ স্বাভাবিক হয়নি তখনও, যদিও বেশি দামে তা কিনতে পাওয়া যেত।

উমার রদিয়াল্লাহু আনহু বলতেন, “আমি কীভাবে মানুষদের সেবা করব বা যত্ন নেব যদি আমি তাঁদের কষ্টের অনুভূতি উপলব্ধি করতে না-ই পারি?”

আসলাম মাওলা উমার বর্ণনা করেছেন, “আমরা বলাবলি করতাম—যদি মহান আল্লাহ সেই বছর দুর্ভিক্ষ তুলে না নিতেন, তা হলে উমার ইবনুল খাত্তাব রদিয়াল্লাহু আনহু উম্মাহর প্রতি তাঁর দায়িত্ববোধের চিন্তার কারণেই মৃত্যুবরণ করতেন।”

সুবহানাল্লাহ! ‘নেতার দায়িত্ববোধ’ এর বিষয়ে এরচেয়ে উত্তম দৃষ্টান্ত কি প্রদর্শন করতে পেরেছে পৃথিবীর কোনো নেতা বা শাসক? ইতিহাসে যতজন নেতা ‘বিশ্বশান্তির জন্য নোবেল’ বিজয় করেছেন, তাঁদের সবার ঘটনা একত্র করলেও এক ‘খাত্তাবের পুত্র উমার ফারুক’-এর গুণাবলীর অতি তুচ্ছ, অতি সামান্য কিছুর সমকক্ষ হবে কি? কখনোই না। রদিয়াল্লাহু তাআলা আনহু।

নোবেল বিজয়ীদের ‘অ-সামান্য’ কীর্তির কথার চেয়ে আমরা, মুসলিমরা, আমাদের প্রকৃত নায়কদের ‘অসামান্য’ কীর্তিগুলোকেই হাজারগুণ উত্তম মনে করি; আল-হামদুলিল্লাহ।
.
বই : অনেক আঁধার পেরিয়ে
লেখক : মুহাম্মাদ জাভেদ কায়সার (রহ)
প্রকাশনী : সত্যায়ন প্রকাশন

Wafilife Books

যোগাযোগ Head Office: House 310, Road 21 Mohakhali DOHS, Dhaka-1206 Phone: 017-9992-5050 096-7877-1365 sales@wafilife.com

View all posts by Wafilife Books →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *